৬ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ শনিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯
Home / দেশ / ধুমপান মুক্ত, ক্লিন ও গ্রীন সিটি ও নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে তৃণমূল পর্যায়ে আইনের যথাযথ প্রয়োগের দাবি

ধুমপান মুক্ত, ক্লিন ও গ্রীন সিটি ও নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে তৃণমূল পর্যায়ে আইনের যথাযথ প্রয়োগের দাবি

CAB 6 ward Participantsক্যাব ৬নং পূর্বষোল শহর ওয়ার্ড কমিটির অরিয়েন্টেশন সম্পন্ন ধুমপান মুক্ত, ক্লিন ও গ্রীন সিটি ও নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে তৃণমূল পর্যায়ে আইনের যথাযথ প্রয়োগের দাবি. 
যত্রতত্র ধুমপানের বিজ্ঞাপনের বিষয়ে ধুমপান বিরোধী আইন বিধি নিষেধ থাকলেও নগরজুড়ে ধুমপানের বিজ্ঞাপন, এমনকি জেলা প্রশাসনের প্রাণকেন্দ্র কোর্ট বিল্ডিং চত্বর, সিভিল সার্জনের কার্যালয়, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, নগরীর শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিও ধুমপানের বিজ্ঞাপন ও বিক্রি মুক্ত নয়। চট্টগ্রাম সিটিকর্পোরেশন ক্লিন ও গ্রীন সিটিতে রূপান্তরের পরিকল্পনা নিলেও যত্রতত্র ময়লার স্তুপ, আবর্জনা, রাস্তায় ধুলাবালি, নালা-নর্দমায় ময়লা-আবর্জনায় ভর্তি, মানুষ ঘর থেকে ময়লাগুলি ডাস্টবিনে না ফেলে নালায় ফেলছে। যার কারনে বর্ষাকালে নালাগুলি ভরাট হয়ে জলাবদ্ধতাসৃষ্ঠি করছে। অন্যদিকে জনগনের জন্য নিরাপদ খাদ্যের জন্য আইন থাকলেও খাদ্যে ভেজাল, নকল, মানহীন ও বিএসটিআই এর লাইসেন্স ছাড়া পণ্য বিক্রির মহোৎসব চলছে। ভেজাল ও মানহীন খাদ্যপণ্যসহ জীবনরক্ষাকারী ওষুধ, ক্লিনিক ডায়গনস্টিকে ভেজালে সয়লাব পুরো নগর জুড়ে। কিন্তু এসমস্ত বিষয়গুলো দেখার জন্য নিয়োজিত সরকারি আইন ও কর্তৃপক্ষ থাকলেও আইনের যথাযথ প্রয়োগে দায়িত্বশীল কর্তৃপক্ষের গাফলতি ও অবহেলার কারনে এ সমস্ত মানবঘাটি অপরাধগুলি বন্ধ করা যাচ্ছে না। ফলে নগরজীবন ক্রমশ হয়ে উঠছে অসহনীয় ও বসবাস অনুপযোগী। এ অবস্থা থেকে পরিত্রান পেতে পেলে ধুমপান বিরোধী বিজ্ঞাপন আইন, ময়লা-আবর্জনা পরিস্কারে সিটি কর্পোরেশনের আইন এবং নিরাপদ খাদ্য ও ভোক্তা সংরক্ষণ আইন তৃণমূল পর্যায়ে যথাযথ ভাবে প্রয়োগ ও জনগনের মাঝে সচেতনতা নিশ্চিত করতে হবে। ১৯ জানুয়ারি ২০১৯ইং নগরীর বহদ্দাহাটস্থ প্রাইম স্কুল অ্যান্ড কলেজ মিলানায়তনে ক্যাব ৬নং নং পূর্ব ষোল শহর ওয়ার্ড কমিটির অরিয়েন্টেশন এ বিভিন্ন বক্তাগন উপরোক্ত মতামত ব্যক্ত করেন। ক্যাম্পইন ফর টোবাকো ফ্রি কিডস’র সহায়তায় পিপলস জুবিল্যান্ট এনগেজমেন্ট ফর টোবাকো ফ্রি চিটাগাং সিটি প্রকল্প, কনজ্যুমারস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ক্যাব) চট্টগ্রামের আয়োজনে অরিয়েন্টেশনে সভাপতিত্ব করেন ক্যাব ৬নং পুর্ব ষোল শহর ওয়ার্ড কমিটির সভাপতি অধ্যক্ষ মনিরুজ্জমান। প্রধান অতিথি ছিলেন ক্যাব কেন্দ্রিয় কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্ট এস এম নাজের হোসাইন। ক্যাব ডিপিও জহুরুল ইসলামের সঞ্চালনায় অরিয়েন্টেশনে অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ক্যাব চট্টগ্রাম দক্ষিন জেলা সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শাহনেওয়াজ আলী মির্জা, চান্দগাঁও থানা সভাপতি জানে আলম, সহ-সভাপতি আবু ইউনুস, সেলিম সাজ্জাদ, ক্যাব পাঁচলাইশের যুগ্ন সম্পাদক সেলিম জাহ্ঙ্গাীর, ক্যাব বন্দরের আলমগীর বাদসা। আলোচনায় অংশনেন শিক্ষিকা ডেফোডিল চক্রবর্তী, মুহাম্মদ আলমগীর, মিজানুল ইসলাম, প্রকৌশলী আবদুর রহিম, ক্যাব আইবিপি প্রকল্পের মাঠ সমন্বয়কারী জগদীস চন্দ্র রয় প্রমুখ।
 
অরিয়েন্টেশনে বলা হয় সরকার আগামি ২০১৪ সালের মধ্যে দেশে ধুমপান নিমূর্লে উদ্যোগ নিয়েছে। ইয়াবা সেবনের বিরুদ্ধে কঠিন পদক্ষেপ নিচ্ছে। কিন্তু ধুমপান হলো মাদক সেবনের প্রথম রাস্তা। সেকারনে হাসপাতাল, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও জনসমাগমস্থলে ধুমপান নিষিদ্ধ হলেও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার লোকজনও এ অপরাধ থেকে মুক্ত নয়। বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ হলেও প্রকাশ্যে বিড়ি-সিপারেট, পান জর্দা বিক্রি বন্ধ হচ্ছে না। এমনকি জর্দা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের মালিককে রাস্ট্রীয় পুরস্কার প্রদান, রাস্ট্রীয় অর্থায়েন নির্মিত ছবিতে ধুমপানের দৃশ্য দেখানো হচ্ছে। নতুন নতুন ধুমপায়ী সৃষ্ঠি করতে তামাক কোম্পানী গুলি নানা উপটৌকন ও প্রণোদনা দিচ্ছে। বিষয়গুলি দেখার জন্য কেউ নেই। প্রাণঘাতি এ ধুমপান বন্ধ হলে চিকিৎসা খাতে রাস্ট্রীয় অনেক অর্থ স্বাশ্রয় হতো।
 
অরিয়েন্টেশনে ভোক্তা অধিকার, নিরাপদ খাদ্য ও ধুমপান বিরোধী আইন ও বিজ্ঞাপন বিষয়ে মাল্টিমিডিয়া উপস্থাপন করেন ক্যাব ডিপিও জহুরুল ইসলাম। উল্লেখ্য ক্যাব চট্টগ্রাম সিটিকর্পোরেশনের ৪১টি ওয়ার্ডের ক্যাব ওয়ার্ড কমিটির নেতাদের ধুমপান মুক্ত, ক্লিন ও গ্রীন সিটি ও নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতে দক্ষতা ও নেতৃত্ব উন্নয়নে ধারাবাহিক ভাবে অরিয়েন্টশন এর আয়োজন করার উদ্যোগ নিয়েছে। তারই অংশ হিসাবে চট্টগ্রাম সিটিকর্পোরেশনের ৬নং পূর্ব ষোল শহর ওয়ার্ড কমিটির অরিন্টেশন সম্পন্ন হয়। অরিয়েন্টেশনে কমিটির ৩৬জন সদস্য/সদস্যা অংশগ্রহন করেন। ধারাবাহিত ভাবে অন্যান্য ওয়ার্ড গুলিতে এ ধরনের অরিয়েন্টেশনের আয়োজন করা হবে। ক্যাব ওয়ার্ড কমিটির সদস্য/সদস্যা ও নেতৃবৃন্দকে এ বিষয়ে ক্যাব ডিপিও জহুরুল ইসলাম ০১৯১৫৭৯৬০৬১ এ যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা যাচ্ছে। 

আরও পড়ুন...

ট্রাফিক শৃঙ্খলা

জেনে নিন কোন অপরাধে কত জরিমানা

ঢাকা মহানগরীর ট্রাফিক ব্যবস্থার উন্নয়ন, ট্রাফিক আইনের কঠোর প্রয়োগ, জনসচেতনতা এবং ট্রাফিক শৃঙ্খলা আনয়নের লক্ষ্যে …