Home / বিনোদন / অবিস্মরণীয় করতে কুয়েত প্রবাসীদের প্রচেষ্টা

অবিস্মরণীয় করতে কুয়েত প্রবাসীদের প্রচেষ্টা

বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা,  হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এই মহানায়কের জন্মশত বার্ষিকী পালন করবে বাংলাদেশ। আমারা কুয়েত প্রবাসীরাও পিছিয়ে নেই বাংলাদেশ রাষ্ট্রের স্বপ্নদ্রষ্টার  জন্মশত বার্ষিকী পালনে। বর্তমানে করোণা মহামারির কারণে কুয়েতে জনসমাগম নিষিদ্ধ থাকায় বড় পরিসরে কোন আয়োজন না করলেও হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী দিনটিকে কুয়েত প্রবাসীদের ইতিহাসে স্মরনীয় করে রাখতে বাংলাদেশ দূতাবাস কুয়েত এর পৃষ্ঠপোষকতায় বাংলাদেশ বাংলাদেশ ক্রিকেট এসোশিয়েশন আয়োজন করে মুজিব বর্ষ বিজয় কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট। ছোট আকারে সীমিত পরিসরে হলেও একপ্রকার জাঁকজমকপূর্ণ ভাবেই খেলার উদ্বোধন করেন কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আশিকুজ্জামান।

আব্বাসিয়া ক্রিকেট গ্রাউন্ডের (২৩শে অক্টোবর) শুক্রবার সকালে এই টুর্নামেন্টর  উদ্বোধন করা হয়। কুয়েতে প্রবাসী বাংলাদেশী ক্রিকেট প্রেমীদের ২০টি দল অত্যন্ত আন্তরিকতা ও আনন্দ উচ্ছাসের সাথে  খেলায় অংশ নেয়। সেই থেকে প্রত্যেক শুক্রবার ভোর থেকে দুপর পর্যন্ত চলছে খেলা। এদিকে অবিস্মরণীয় এবং জাঁকজমকপূর্ণ  আয়োজনে বদ্ধ পরিকর বাংলাদেশ ক্রিকেট এসোশিয়েশন এর নেতৃবেন্দ।

এসোশিয়েশন এর সভাপতি জাহাঙ্গির খান পলাশ, সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন, নাজিম উদ্দিন, হুমায়ুন আলী সকাল থেকে বিকাল, সন্ধ্যা কি রাত কুয়েতের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে চষে বেড়াচ্ছেন,  কখনো  খেলোয়াড়দের সাথে আবার কখনো দল নেতাদের সাথে মিটিং সব মিলেয়ে মোটামোটি ব্যস্ত সময় পার করছেন। মুজিব বর্ষ কে  অবিস্মরণীয় করতে তাদের প্রচেষ্টা। পেছন থেকে কয়েকজন নিঃস্বার্থবান  ক্রীড়া প্রেমিক সর্বদা সহযোগিতা পরামর্শ করে যাচ্ছেন।  কুয়েতে মুজিব বর্ষ কে  অবিস্মরণীয় করতে তাদের একমাত্র প্রচেষ্টা। প্রতিবেদক মঈন উদ্দিন সরকার সুমনের কাছে অকপটে অনেক কথাই শেয়ার করলেন আয়োজকরা।

কুয়েতে ক্রীড়াক্ষেত্রে বড় ভূমিকা প্রবাসীদের তৈরী টীম গুলো। কেউ একক ভাবে আবার কোন টিম যৌথ ভাবে নিজেদের কষ্টার্জিত অর্থদিয়ে পরিচালনা করে  যাচ্ছেন  প্রত্যেকটি টিম। খেলোয়াড় থেকে শুরু করে দলের সবার একটি আবেদন কুয়েতে কত বড় বড় বিত্তবান ব্যবসায়ী আছেন তারা এগিয়ে আসলে কুয়েতে তৈরী হতে পারে কোন এক নতুন টাইগার। আনন্দের সংবাদ এরই মধ্যে দুইজন প্রবাসী কুয়েতে জাতীয় ক্রিকেট টিমে খেলছেন। এটা অবশ্যই আমাদের জন্য গৌরভের। সর্বোপরি খেলোয়াড় সহ পরিচালনা কমিটির সবাই আনন্দিত কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মোহাম্মাদ আশিকুজ্জামান এর পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাসের কথা শোনে। তিনিও প্রতিনিয়ত খোজঁ খবর নিচ্ছেন।

About বাংলার বার্তা

আরও পড়ুন...

কুয়েতে তরুন সফল উদ্যোক্তা

কুয়েতে সাধারণ এক গাড়িচালক হিসেবে প্রবাস জীবন শুরু। সেই থেকে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে ধীরে ধীরে সফল ব্যবসায়ীতে পরিণত হয়েছেন । বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশ থেকে নিত্যব্যবহার্য পণ্য আমদানি করে এরই মধ্যে দেশটিতে বিশাল বাজার তৈরি করে ফেলেছেন তরুণ এই প্রবাসী।শরীফ মোহাম্মদ মিজানুর রহমান।।  মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম (৩৮)। বন্ধুরা তাঁকে সম্মান করে মুফতি নামে ডাকেন। গ্রামের বাড়ি পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার বেকুটিয়া গ্রামে। শহিদুল ইসলামের বাবা মুহাম্মদ সুলতান আলী পেশায় একজন কৃষক। বাংলাদেশে থাকার সময় শহিদুল ইসলাম রাজধানীর মিরপুরের মাদ্রাসা দারুল উলুম থেকে দাওরায়ে হাদিস বিষয়ে পড়াশোনা করেন এবং সর্বোচ্চ ডিগ্রি মুফতি উপাধি অর্জন করেন। এরপর কিছুদিন দেশে একটি মাদ্রাসায় শিক্ষকতাও করেন তিনি। শহিদুল ইসলাম জানান, ২০০৫ সালে কুয়েতে এসে কুয়েতি  নাগরিকের ওখানে গাড়িচালক হিসেবে তিনি দুই বছর কাজ করেন। সে কাজের সূত্রে কুয়েতের বিভিন্ন স্থান ও বাজার সম্পর্কে পরিচিত হন তিনি। পরে গাড়ি চালানো বাদ দিয়ে তিনি কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে বিক্রয়কর্মীর চাকরি  করেন।  পাশাপাশি ছোট খাট …

error: Content is protected !!