Home / দেশ / আলহাজ্ব হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ-কে কসবাবাসীর প্রাণঢালা অভিনন্দন

আলহাজ্ব হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ-কে কসবাবাসীর প্রাণঢালা অভিনন্দন

আমিনুল ইসলাম দুলাল, কসবা, ব্রাম্মণবাড়িয়াঃ ব্রাম্মণবাড়িয়া-৪ (কসবা-আখাউড়া) নির্বাচনী এলাকার জন্য আলহাজ্ব মোঃ সেলিম মাষ্টার কে মনোনিত করায় আলহাজ্ব হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ-কে অভিনন্দন জানাতে কসবা-আখাউড়া জাতীয় পার্টি ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠন নেতৃবৃন্দ এক অনারম্ভ অভিনন্দন সভার আয়োজন করে। কসবায় দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পৌর ছাত্র সমাজ সভাপতি শাহীন এর সভাপতিত্বে এই অভিনন্দন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। সে সময় উপস্থিত ছিলেন খুরশেদ আলম মাষ্টার সহ সভাপতি জাতীয় পার্টি, জহিরুল হক খান ইউপি চেয়ারম্যান, আহবায়ক মনিরুল হক খান উপজেলা ছাত্র সমাজ, বাহার উদ্দিন বাশার সাংগঠনীক সম্পাদক পৌর জাতীয় পার্টি, বাবু, আমিনুল ইসলাম দুলাল, আরমান উদ্দিন জুটন প্রমুখ। বক্তারা বক্তব্যে বর্তমানে বিভিন্ন সমস্যা থেকে দেশকে মুক্ত করে শান্তিপূর্ন দেশ সবার মাঝে উপহার দিতে সকলকে আসন্ন নির্বাচনে সাবেক সফল রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ-কে জয়ী করতে কাজ করার আহবান জানান।

About

আরও পড়ুন...

কুয়েতে তরুন সফল উদ্যোক্তা

কুয়েতে সাধারণ এক গাড়িচালক হিসেবে প্রবাস জীবন শুরু। সেই থেকে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে ধীরে ধীরে সফল ব্যবসায়ীতে পরিণত হয়েছেন । বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশ থেকে নিত্যব্যবহার্য পণ্য আমদানি করে এরই মধ্যে দেশটিতে বিশাল বাজার তৈরি করে ফেলেছেন তরুণ এই প্রবাসী।শরীফ মোহাম্মদ মিজানুর রহমান।।  মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম (৩৮)। বন্ধুরা তাঁকে সম্মান করে মুফতি নামে ডাকেন। গ্রামের বাড়ি পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার বেকুটিয়া গ্রামে। শহিদুল ইসলামের বাবা মুহাম্মদ সুলতান আলী পেশায় একজন কৃষক। বাংলাদেশে থাকার সময় শহিদুল ইসলাম রাজধানীর মিরপুরের মাদ্রাসা দারুল উলুম থেকে দাওরায়ে হাদিস বিষয়ে পড়াশোনা করেন এবং সর্বোচ্চ ডিগ্রি মুফতি উপাধি অর্জন করেন। এরপর কিছুদিন দেশে একটি মাদ্রাসায় শিক্ষকতাও করেন তিনি। শহিদুল ইসলাম জানান, ২০০৫ সালে কুয়েতে এসে কুয়েতি  নাগরিকের ওখানে গাড়িচালক হিসেবে তিনি দুই বছর কাজ করেন। সে কাজের সূত্রে কুয়েতের বিভিন্ন স্থান ও বাজার সম্পর্কে পরিচিত হন তিনি। পরে গাড়ি চালানো বাদ দিয়ে তিনি কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে বিক্রয়কর্মীর চাকরি  করেন।  পাশাপাশি ছোট খাট …

error: Content is protected !!