Home / দেশ / ইসলামপুরের গাইবান্ধা ইউনিয়নে এলজিএসপি’র টাকা হরিলুট চেয়ারম্যান হাতিয়ে নিয়েছে ২৫% পিসি

ইসলামপুরের গাইবান্ধা ইউনিয়নে এলজিএসপি’র টাকা হরিলুট চেয়ারম্যান হাতিয়ে নিয়েছে ২৫% পিসি

নাজমুল হক বাংলার র্বাতা জামালপুর প্রতনিধিঃি সবাই ঘুষ খায়- আমি কেন খাব না। ২০ লাখ টাকা খরচ করে চেয়ারম্যান হয়েছি ওই টাকা না তুললে আমরা খাব কি ? এলজিএসপি প্রকল্পের বরাদ্দকৃত টাকার ২৫% পিসি বা ঘুষ সবাই নিয়েছে তাই আমিও নিয়েছি Ñ একথাগুলো বলেন, জামালপুর জেলার ইসলামপুরের গাইবান্ধা ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদ হাসান কবির মঞ্জিল। জানাগেছে, লোকাল গভর্নমেন্ট সাপের্ট প্রজেক্ট (এলজিএসপি প্রকল্প) ২ এর আওতায় ২০১১-১২ অর্থ বছরে গাইবান্ধা ইউনিয়নে ১৮টি প্রকল্পের বিপরীতে ১৩ লাখ ২৫ হাজার ৬০ টাকা বরাদ্দ হয়েছে। ইউনিয়ন পরিষদ ম্যানূয়াল অনুযায়ী এলজিএসপি’র টাকায় বিভিন্ন প্রকল্প/স্কীম গ্রহণ পূর্বক বাস্তবায়ন করার কথা। ওই ইউনিয়নে এলজিএসপি প্রকল্প সমূহের কাজ গুলো গত ৩০ জুনের মধ্যে সমাপ্ত করার কথা থাকলেও এখনো কোন কোন প্রকল্পের কাজই ধরা হয়নি। সরেজমিনে গাইবান্ধা ইউনিয়নে এলজিএসপি’র কয়েকটি প্রকল্প ঘুরে দেখা গেছে, প্রকল্প নং ১৬ গাইবান্ধা সাজেদা মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয়ের গৃহ মেরামতের জন্য ৯০ হাজার টাকা বরাদ্দ হলেও কোন কাজ করা হয়নি। এছাড়াও গাইবান্ধা ইউনিয়ন পরিষদ গৃহ মেরামত ও সংস্কার প্রকল্প নামে আরও ৮০ হাজার টাকা বরাদ্দ হলেও কোন কাজ করা হয়নি। সরেজমিনে গিয়ে গাইবান্ধা ইউনিয়নে এলজিএসপি প্রকল্পের আওতায় তথ্য সেবা কেন্দ্রের সরঞ্জামাদি ক্রয়, বিভিন্ন স্থানে অগভীর নলকুপ স্থাপন, স্যানেটারী ল্যাট্রিন সরবরাহ, রাস্তা মেরামত ও গর্ত ভরাট প্রকল্প সমূহ বাস্তবায়নের চিত্র চোখে পড়েনি। এলাকাবাসীর অভিযোগ, প্রকল্পের বিপরীতে বরাদ্দকৃত টাকারা ২৫% ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিব হাতিয়ে নিয়ে ইউপি সদস্যদের মাধ্যমে ভুয়া ভাউচারে এলজিএসপি’র টাকা হরিলুট করা হয়েছে। গাইবান্ধা ইউপি সদস্যদের নিকট থেকে এলজিএসপি প্রকল্পের বরাদ্দকৃত টাকার ২৫% পিসি বা ঘুষ নেওয়ার ব্যপারে জানতে চাইলে গাইবান্ধা ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদুল হাসান কবির মঞ্জিল দৈনিক ভোরের কাগজের সাংবাদিক মুরাদুজ্জামানসহ সাংবাদিকদের উদ্দেশ্য করে বলেন, সাংবাদিকরা কলম সন্ত্রাসী। এছাড়াও তিনি এ ব্যাপারে সাংবাদিকদের বলেন, সবাই ঘুষ খায়- আমি কেন খাব না ? ২০ লাখ টাকা খরচ করে চেয়ারম্যান হয়েছি । পিসি নিয়ে ওই টাকা না তুললে আমরা খাব কি ? এলাকাবাসী আরও অভিযোগ করে বলেন, গাইবান্ধা ইউপি চেয়ারম্যান ইসলামপুরের বিএনপি নেতা মাহমুদ হাসান কবির মঞ্জিল ইসলামপুরে মহাজোট সরকারের ভাবমুর্তি ক্ষুন্ন করতে এলজিএসপি প্রকল্প বাস্তবায়নে সরকারের কোন বিধানই মানেনি। ওই ইউপি চেয়ারম্যান মেম্বারদের কাছ থেকে এলজিএসপি প্রকল্পের জন্য বরাদ্দকৃত টাকার শতকরা ২৫ ভাগ টাকা পিসি/ঘুষ নিয়ে ভূয়া ভাউচারে টাকা তোলে প্রকল্প বাস্তাবায়ন সংশ্লিষ্টদের যোগসাজশে আতœসাত করেছে।

ব্র‏হ্মপুত্র নদে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন হুমকির মুখে ইসলামপুর শহর রক্ষা বাধঁ
নাজমুল হক বাংলার র্বাতা জামালপুর প্রতনিধিঃি ইসলামপুর শহর রক্ষা বাধেঁর উজানে ব্র‏‏হ্মপুত্র নদে ড্রেজার দিয়ে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করায় হুমকির মুখে রয়েছে কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ইসলামপুর শহর রক্ষা বাধঁ।
জানাগেছে, ইসলামপুর পৌর শহর, উপজেলা পরিষদ, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স, টেলিফোন অফিস, সাব-রেজিষ্টার অফিস, টেলিফোন এক্সেঞ্জেসহ অসংখ্য সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা ব্র‏হ্মপুত্র নদের ভাঙন থেকে রক্ষার জন্য ১৯৯৮ সালে ইসলামপুর ফকির পাড়া নামকস্থানে ১২ কোটি টাকা ব্যয়ে ইসলামপুর শহর রক্ষা বাধঁ নামে একটি বাধঁ নির্মাণ করা হয়। ওই বাধঁটি নিমার্ণের ফলে ইসলামপুর পৌর শহরসহ অসংখ্য সরকারি-বেসরকারি স্থাপনা ব্র‏হ্মপুত্র নদের ভাঙন থেকে রক্ষা পেলেও একটি কুচক্রিমহল বাধঁ সংলগ্ন এলাকা থেকে ড্রেজার দিয়ে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করায় শহর রক্ষা বাধঁটি হুমকির মুখে পড়েছে। এলাকাবাসী জানায়, উপজেলার পলবান্ধা ইউনিয়নের বাহাদুরপুর (মরাকান্দী) ও পৌর এলাকার ফকিরপাড়া গ্রামের কতিপয় বালু সন্ত্রাসী সিন্ডিকেট করে বালু বিক্রি করায় বাধঁটিতে ভাঙন দেখাদিতে পারে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এলাকাবাসী নয়া দিগন্তকে জানান, বালু উত্তোলন কারীরা এতোই শক্তিশালী যে তাদের বিরুদ্ধে কথা বলার সাহস নেই কারো। তাদের অভিযোগ- বালু সন্ত্রাসীরা ব্র‏হ্মপুত্র নদ থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিলেও প্রশাসনের কোন মাথা ব্যাথা নেই। এ ব্যাপারে ইসলামপুর উপজেলা নিবার্হী অফিসার আনোয়ার হোসাইন আকন্দের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান- জরুরী ভিত্তিতে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ইসলামপুরে অল্পের জন্য বেঁচে গেল আন্তঃনগর তিস্তা ট্রেনের শত শত যাত্রীর প্রাণ
নাজমুল হক বাংলার র্বাতা জামালপুর প্রতনিধিঃি জামালপুরের ইসলামপুরে অল্পের জন্য রক্ষা পেল আন্তঃনগর তিস্তা এক্সপ্রেস ট্রেনের শত শত যাত্রী। জানাগেছে, গত মঙ্গলবার আন্তঃনগর তিস্তা এক্সপ্রেস ট্রেনটি ২টা ৪০ মিনিটে দেওয়ানগঞ্জ রেল স্টেশন থেকে ঢাকার অভিমুখে যাত্রা শুরু করে । ট্রেনটি দেওয়ানগঞ্জ থেকে ছাড়ার পর ট্রেনের ৩৮০২নং কোচের হেঙ্গার আই ব্লোস্টন ট্রেন চলন্তবস্থায় ভেঙ্গে যায়। এতে ট্রেনচালক ও পরিচালক (গার্ড) কেহ বিষয়টি না দেখায় ভাঙ্গা হেঙ্গার আই ব্লোস্টন নিয়ে চলন্তবস্থায় ট্রেনটি ঝুলতে ঝুলতে ১৫ কিলোমিটার পথ পেরিয়ে ইসলামপুর রেল স্টেশনে এসে পৌছে। ট্রেনটির হেঙ্গার আই ব্লোস্টন ঝুলতে দেখে পথচারীসহ রেলযাত্রীরা চিৎকার করতে থাকে। পরে ট্রেনটি ইসলামপুর স্টেশনে নিরাপদে দাঁডালে দেওয়ানগঞ্জ থেকে একটি রিলিফ ইঞ্জিন এসে ও কোচটি কর্তন করে নিয়ে যায়। এতে তিস্তা ট্রেন ইসলামপুর স্টেশন থেকে প্রায় দেড় ঘন্টা বিলম্বে ছেড়ে যায়। রেল সুত্রে জানাগেছে ট্রেনের ভেঙ্গে যাওয়া হেঙ্গার আই ব্লোস্টনের আঘাতে রেল লাইনের স্লিপারের মাথা ভেঙ্গে গেছে। এতে ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে ইসলামপুর থেকে দেওয়ানগঞ্জ পর্যন্ত ১৫ কিলোমিটার রেল পথ। ইসলামপুর রেল স্টেশনে অপেক্ষামান যাত্রীরা জানান, শত শত যাত্রীকে স্বয়ং সৃষ্টিকর্তার দয়ায় মৃত্যুর হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে। ইসলামপুরের রেল স্টেশন মাষ্টার আমিনুল ইসলাম জানান, মোশারফগঞ্জ রেল স্টেশন লোকবলের অভাবে বন্ধ থাকায় ট্রেনটি ঝুলতে ঝুলতে এত দূর এসেছে। এ অবস্থায় ট্রেনের শত শত যাত্রী নির্ঘাত মৃত্যু হাত থেকে রক্ষা পাওয়ায় সৃষ্টিকর্তার নিকট কৃতজ্ঞতা জানান তিনি।

ইসলামপুর হাসপাতালে সভা কক্ষ সাজানোর নামে স্টাফদের নিকট স্বাস্থ্য কর্মকর্তার চাদাঁবাজি !
নাজমুল হক বাংলার র্বাতা জামালপুর প্রতনিধিঃি ইসলামপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার বিরুদ্ধে হাসপাতালের সভাকক্ষ সাজানোর নামে স্টাফদের নিকট থেকে পাচঁ লক্ষাধিক টাকা চাদাঁবাজি ও অফিস ফাকিঁর অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া ডাক্তারদের সাথে সমন্নয় হীনতার কারণে তিনি যোগদানের এক মাসের মধ্যে ছয় জন ডাক্তার অন্যত্র বদলি হয়েছেন বলে জানাগেছে। এতে হাসপাতালের সকল কাজকর্ম স্থবির হয়ে পড়েছে। এ হাসপাতালে প্রতিমাসে প্রায় অর্ধশতাধিক রোগীর অপারেশন হলে গত এক মাসে কোন অপারেশন হয়নি। ফলে নদী ভাঙন কবলিত এ অঞ্চলের অসহায় দরিদ্র মানুষরা সরকারের স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।
জানাগেছে, সাবেক স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডাক্তার ফিরোজ খান জাতীয় ক্যান্সার ইন্সিটিটিউটের সহকারী পরিচালক হিসাবে যোগদান করায় জামালপুর এর বেসরকরী ক্লিনিক নকিব উদ্দিন হাসপাতালের মালিক ডাক্তার মুহাম্মদ সুলতান শামছুজ্জামান ইসলামপুর স্বাস্থ্য কমপে-ক্সে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা হিসাবে যোগদান করেন। যোগদানের পর তিনি হাসপাতালের সভাকক্ষ সাজানোর জন্য আসবাবপত্র ক্রয় বাবদ ২২ জন মেডিকেল অফিসারের নিকট থেকে ৫০০০ টাকা করে এক লাখ ১০ হাজার, ১২ জন উপ-সহকারী মেডিকেল অফিসার (এমও) ২০০০ টাকা করে ২৪ হাজার, আট জন নার্সের নিকট দুই হাজার করে ১৬ হাজার, ছয়জন টেকনোলজিস্টে নিকট ১২ হাজার, ছয়জন অফিস সহকারীর নিকট ছয় হাজার,পাচঁজন স্বাস্থ্যপরিদর্শকের নিকট পাচঁ হাজার, আট জন সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শকের নিকট আট হাজার,৫৬জন স্বাস্থ্য সহকারীর নিকট ২৪ হাজার ও ৩৮ জন সিএইচসিপি’র নিকট ৩০ হাজার ৪০০ টাকাসহ ১৯০ জন স্টাফকে চাপের মুখে বাধ্য করে তাদের নিকট থেকে পাচঁ লক্ষাধিক টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েক জন স্টাফ বলেন, স্ব-ইচ্ছায় কেউ বেতন থেকে ৫০০০ টাকা দেয়না। তিনি যোগদানের পর থেকে গত এক মাসে স্বাস্থ্য কমপে¬ক্সে ছয়জন ডাক্তার অন্যত্র বদলি হয়ে চলে গেছেন। যারা আছেন তারাও বদলির জন্য জোর তদবির শুরু করেছেন। অতীতে হাসপাতালে প্রতিমাসে ৩০ থেকে ৫০ টি সিজারসহ ছোট অপারেশন হলেও গত এক মাসে কোন অপারেশন হয়নি। ফলে নদী ভাঙন কবলিত এ অঞ্চলের অসহায় দরিদ্র মানুষরা সরকারের স্বাস্থ্য সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। সরকারি বিধান অনুযায়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার হাসপাতাল কোয়াটারে থাকার কথা থাকলে তিনি সপ্তাহে দু’এক দিন দুপুর ১২টায় কর্মস্থলে এসে আবার ২টায় চলে জান। বাকী দিন গুলো তিনি জামালপুরে নিজের প্রাইভেট ক্লিনিক নকিবউদ্দিন হাসপাতালের কাজ নিয়েই ব্যস্ত থাকেন বলে জানাগেছে। স্টাফদের নিকট চাঁদা নেওয়ার ব্যাপারে ডাক্তার মুহাম্মদ সুলতান শামছুজ্জামান এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সভাকক্ষের আসবাব পত্র ক্রয়ের জন্য সকল ডাক্তার ও স্টাফ বেতন অনুযায়ী স্ব-ইচ্ছায় সহযোগিতা নেয়া হয়েছে। তবে নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েক জন স্টাফ জানান, স্ব-ইচ্ছায় কেউ বেতন থেকে ৫০০০ টাকা দেয়না। এ ব্যাপারে জামালপুরের সিভিল সার্জন ডাক্তার নারায়ন চন্দ্র দে নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। তবুও তদন্ত করে দেখবেন বলে জানান তিনি।

জামালপুরে জেলা বিএনপির বিক্ষোভ মিছিল-প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত

নাজমুল হক বাংলার র্বাতা জামালপুর প্রতনিধিঃি হরতালে প্রধান মন্ত্রীর কার্যালয়ের সামনে গাড়ি পোড়ানোর মামলায় বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহা সচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ ১৮ দলীয় জোট নেতাদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন এবং খোকা,আমান-নাজিম উদ্দিনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারির প্রতিবাদে জামালপুরে জেলা বিএনপি আজ দুপুরে বিক্ষোভ মিছিল-প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে। বিক্ষোভ মিছিলটি দলীয় কার্যালয় থেকে বের হয়ে শহর পদক্ষিণ শেষে তমালতলায় গিয়ে শেষ হয়।
পরে এক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক পৌর মেয়র ওয়ারেছ আলী মামুন ও জেলা ছাত্রদলের আহবায়ক সজিব খান

About

আরও পড়ুন...

চট্টগ্রামে ক্যাব’র উদ্যোগে জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার সাথে অ্যাডভোকেসী সভা অনুষ্ঠিত

চট্টগ্রামে ক্যাব’র উদ্যোগে জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তার সাথে অ্যাডভোকেসী সভা অনুষ্ঠিত। ভোক্তাদের মাঝে শিক্ষা ও …

error: Content is protected !!