Home / শীর্ষ সংবাদ / ঐক্যবদ্ধ কুয়েত বিএনপির সভাপতি মাহফুজ সাঃ সম্পাদক এনাম

ঐক্যবদ্ধ কুয়েত বিএনপির সভাপতি মাহফুজ সাঃ সম্পাদক এনাম

নিজস্ব প্রতিবেদকঃদীর্ঘদিন কয়েক ভাগে বিভক্ত ছিল কুয়েত বিএনপি। মধ্যপ্রাচ্যের অন্যান্য দেশের মতো কুয়েতেও গ্রুপিং কোন্দল ভেঙ্গে ঐক্যের প্লাটফর্ম তৈরি হয়েছে। প্রায় দেড় যুগের বেশী সময়ের পর কুয়েতে বিএনপির নেতৃবৃন্দ সকল কোন্দল কাটিয়ে সকল জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে নির্বাচনের মাধ্যমে কুয়েতে বিএনপির আগামী দিনের নেতা নির্বাচন করলেন ভোটাররা । সবাই ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাউন্সিল ও নির্বাচনের মধ্য দিয়ে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নির্বাচিত করেছেন নতুন নেতা।

কাউন্সিলরদের ভোটে কুয়েত বিএনপির সভাপতি পদে নির্বাচিত হয়েছেন মাহফুজুর রহমান মাহফুজ এবং সাধারণ সম্পাদক পদে বিজয়ী হয়েছেন আবুল হাসেম এনাম। সিনিয়র সহ সভাপতি আব্দুল কাদের মোল্লা, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আজিজ উদ্দিন মিন্টু, সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ মোস্তফা । নির্বাচনকে ঘিরে কুয়েত বিএনপির নেতা কর্মীদের মাঝে প্রাণোচ্ছল পরিবেশ দৃশ্যমান ছিলো ।

জানা যায় বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশে কাউন্সিল ও ভোটের মধ্যদিয়ে কুয়েত বিএনপি’র নতুন নেতৃত্ব নির্বাচিত করা হয়।

শুক্রবার, জানুয়ারী ১, ২০২১, আবদালীর একটি অডিটরিয়ামে অনুষ্ঠিত এই কাউন্সিলে কুয়েত আহবায়ক কমিটির ৪৭ জন সদস্য ও ৬ প্রদেশের মোট ৩৬ জন কাউন্সিলর ব্যালটের মাধ্যমে তাঁদের পছন্দের প্রার্থীকে বিজয়ী করেন। নতুন নেতৃত্বে আগামী দিনে বহির্বিশ্বে সরকার পতন আন্দোলনে সাহসী ভূমিকা রাখবে একই সঙ্গে কুয়েত বিএনপিকে এগিয়ে নিয়ে যাবেন ও দলের অগ্রযাত্রাকে আরো তরান্বিত করবে। এবং, বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার প্রকৃত মুক্তির আন্দোলনে এ কমিটি শক্তিশালী ভূমিকা পালন করবে এমনটা প্রত্যাশা করছেন মধ্যপ্রাচ্য বিএনপির নেতৃবৃন্দ।

নির্বাচন কমিশনার এর দায়িত্বে ছিলেন আলহাজ শওকত, আল আমিন চৌধুরী স্বপন, আশফাক।

About banglarbarta.com

আরও পড়ুন...

কুয়েতে তরুন সফল উদ্যোক্তা

কুয়েতে সাধারণ এক গাড়িচালক হিসেবে প্রবাস জীবন শুরু। সেই থেকে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে ধীরে ধীরে সফল ব্যবসায়ীতে পরিণত হয়েছেন । বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশ থেকে নিত্যব্যবহার্য পণ্য আমদানি করে এরই মধ্যে দেশটিতে বিশাল বাজার তৈরি করে ফেলেছেন তরুণ এই প্রবাসী।শরীফ মোহাম্মদ মিজানুর রহমান।।  মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম (৩৮)। বন্ধুরা তাঁকে সম্মান করে মুফতি নামে ডাকেন। গ্রামের বাড়ি পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার বেকুটিয়া গ্রামে। শহিদুল ইসলামের বাবা মুহাম্মদ সুলতান আলী পেশায় একজন কৃষক। বাংলাদেশে থাকার সময় শহিদুল ইসলাম রাজধানীর মিরপুরের মাদ্রাসা দারুল উলুম থেকে দাওরায়ে হাদিস বিষয়ে পড়াশোনা করেন এবং সর্বোচ্চ ডিগ্রি মুফতি উপাধি অর্জন করেন। এরপর কিছুদিন দেশে একটি মাদ্রাসায় শিক্ষকতাও করেন তিনি। শহিদুল ইসলাম জানান, ২০০৫ সালে কুয়েতে এসে কুয়েতি  নাগরিকের ওখানে গাড়িচালক হিসেবে তিনি দুই বছর কাজ করেন। সে কাজের সূত্রে কুয়েতের বিভিন্ন স্থান ও বাজার সম্পর্কে পরিচিত হন তিনি। পরে গাড়ি চালানো বাদ দিয়ে তিনি কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে বিক্রয়কর্মীর চাকরি  করেন।  পাশাপাশি ছোট খাট …

error: Content is protected !!