Home / দেশ / দেবীদ্বার পৌরসভার দরপত্র জমায় সন্ত্রাসী কতৃক বাধা দরপত্র ছিনতাইয়ের অভিযোগ

দেবীদ্বার পৌরসভার দরপত্র জমায় সন্ত্রাসী কতৃক বাধা দরপত্র ছিনতাইয়ের অভিযোগ

মোঃ হাবিবুর রহমান খান,কুমিল্লা প্রতিনিধি- দেবীদ্বার পৌরসভার আওতাধীন তিনটি বাজার এবং একটি পাবলিক টয়লেট ইজারার নিমিত্তে দরপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন ২৯ শে মার্চ আগ্রহী ইজারায় অংশগ্রহনকারীদের মাঝে অনেকেই দরপত্র জমা দেওয়ায় সন্ত্রাসী কতৃক বাধা এবং দরপত্র ছিনিয়ে নিয়ে ছিরে ফেলার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
জানা যায়,দেবীদ্বার পৌরসভার প্রশাসক উপজেলা নির্বাহী অফিসার জনাব হারুনুর রশিদ স্বাক্ষরিত ০৫-০৩-২০১২ ইং দরপত্র আহ্বানের নিমিত্তে গত ১৯-০৩-২০১২ ইং ছিল দরপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন। কিন্তু নির্ধারিত দিনে কিছু সন্ত্রাসী কতৃক দরপত্র জমা দেওয়ায় বাধা প্রদান করে একটি চক্র। আর ঐ সন্ত্রাসী চক্রের হাতে বাধা প্রাপ্ত ইজারায় অংশ নিতে উৎসাহী উপজেলার লিয়াকত আলী তার দরপত্র ছিনিয়ে নিয়ে একদল সন্ত্রাসী টেন্ডার বক্সের অদুরে দরপত্রের সাথে ব্যাংক ড্রাফট ছিরে ফেলার অভিযোগে লিখিত ভাবে দেবীদ্বার পৌর প্রশাসক বরাবর এই টেন্ডার প্রক্রিয়ায় অংশগ্রহনের বাধার প্রতিকার এবং পুনরায় ইজারায় অংশনেওয়ার ব্যাপারে আবেদন জানিয়েছেন।
দেবীদ্বার পৌরসভার সচিব জনাব শহিদুল ইসলাম এই ব্যাপারে জানান,টেন্ডোর বক্সের অদুরে কিছুটা বিশৃংল অবস্থা দেখতে পাই এবং কিছুক্ষন পর লিয়াকত নামে একজন ইজারায় অংশগ্রহনকারী তার দরপত্র সেট কিছু সন্ত্রাসী ছিরে ফেলেছে মর্মে অভিযোগ দিলে আমি তাকে মানণীয় প্রশাসক বরাবর লিখিত অভিযোগ প্রদানের পরামর্শ দেই।
উল্লেখ্য এই দরপত্র আহ্বানের পরিপ্রেক্ষিতে বিক্রিত ১.দেবীদ্বার পুরান বাজারের ৭ সেট দরপত্রের বিপরিতে জমা পরে ১ টি ২.নতুন বাজারের ১৬ সেট দরপত্রের বিপরিতে জমা পরে ২ টি ৩.পোনরা বাজারের ৬টির বিপরিতে জমা পরে ৪ টি এবং ৪. দেবীদ্বার পাবলিক টয়লেটের ৩ সেটের বিপরিতে জমা পরে মাত্র ১টি।
এ ব্যাপারে দেবীদ্বার পৌরসভার প্রশাসক এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার হারুনুনর রশীদ জনান এ ব্যাপারে এখনও কোন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

আরও পড়ুন...

নগরীতে জেএসইউএস ও সিডিডি আয়োজিত প্রতিবন্ধিতা ও একীভূত উন্নয়ন বিষয়ক কর্মশালা

প্রেস বিজ্ঞপ্তি : প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের নিয়ে কর্মরত জাতীয় সংগঠন সেন্টার ফর ডিজএ্যাবিলিটি ইন ডেভেলপমেন্ট (সিডিডি) ও সিবিএম এর সহযোগিতায় বেসরকারী মানব উন্নয়ন মূলক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন যুগান্তর সমাজ উন্নয়ন সংস্থা (জেএসইউএস)’র অংশগ্রহণে “প্রতিবন্ধিতা ও একীভূত উন্নয়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ”গত ১৯ নভেম্বর ২০২০ ইংরেজী নগরীর দেওয়ানবাজারস্থ সংস্থার প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে জেএসইউএস নির্বাহী পর্ষদের সদস্য ও সংস্থার উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণে আয়োজিত কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন সংস্থার সহ-সভাপতি ফারজানা রহমান শিমু, সাধারণ সম্পাদক ও নির্বাহী পরিচালক ইয়াসমীন পারভীন, ব্যবস্থাপনা উপদেষ্টা ও পরিচালক কবি প্রাবন্ধিক সাঈদুল আরেফীন, সহ-সাধারণ সম্পাদক আলহাজ ছাবের আহমেদ, নির্বাহী সদস্য শাহানাজ বেগম, সিনিয়র এসিসটেন্ট ডিরেক্টর এম এ আসাদ, এসিসটেন্ট ডিরেক্টর শহীদুল ইসলাম, সংস্থার শাখা ব্যবস্থাপকসহ অপরাপর কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও সিডিডি-এর পক্ষ থেকে থিমেটিক এক্সপার্ট মো: জাহাঙ্গীর আলম, সিডিডি’র কোঅর্ডিনেটর ও প্রজেক্ট ম্যানেজার তানবিন আহমেদ, শাহ জালাল, জুনায়েদ রহমান, হীরা বণিক উপস্থিত ছিলেন। কর্মশালায় প্রতিবন্ধিতা বিষয়ক ধারণা, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অন্তর্ভূক্তি, সংস্থায় প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অন্তর্ভূক্তি বিষয়ে ধারণা ও সকল কর্মকাণ্ডে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে সম্পৃক্তকরণের পাশাপাশি এ সংক্রান্ত কর্মপদ্ধতি নির্ধারণসহ নানা বিষয়ে আলোচনা করা হয়। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন মো: জাহাঙ্গীর আলম। কর্মশালা পরিচালনায় মো: জাহাঙ্গীর আলম বলেন, “বর্তমান সরকারের আন্তরিকতা ও নানা উদ্যোগ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। সরকারের এ সংক্রান্ত অনেক আইন ও নীতিমালা রয়েছে। কিন্তু  সে অনুযায়ি সচেতনতা না থাকায় এর সুফল প্রতিবন্ধী ব্যক্তিবর্গ পাচ্ছেন না। আমাদের সকলের সম্মিলত প্রচেষ্টায় প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি সাধিত হতে পারে।” উদ্যোগ নিতে হবে আমাদের সকলকে বলে তিনি মন্তব্য করেন। এ প্রসঙ্গে সংস্থার পরিচালক কবি প্রাবন্ধিক সাঈদুল আরেফীন বলেন, “জেএসইউএস প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। সংস্থা অপরাপর কর্মসূচীতে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অংশগ্রহণ এবং তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ করে।” ভবিষ্যতে সকল প্রকল্প গ্রহণ এবং বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধিতা ইস্যুটি সর্বাগ্রে বিবেচনা করা হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। -প্রেস বিজ্ঞপ্তি বার্তা প্রেরক মো: আরিফুর রহমান প্রোগ্রাম ম্যানেজার (এসডিপি)