Home / দেশ / সারাদেশ / পাবনার চাটমোহরে বিরল প্রজাতির হনুমান-

পাবনার চাটমোহরে বিরল প্রজাতির হনুমান-

মোবারক বিশ্বাসঃ পাবনার চাটমোহর উপজেলার হরিপুরে বিরল প্রজাতির একটি হনুমানের আবির্ভাব ঘটেছে। গত দুই থেকে তিন দিন আগে হনুমানটি হরিপুর বুড়িপাড়া গ্রামের আঃ বারেকের বাড়িতে এসে তার বাড়ির তেঁতুল গাছে আশ্রয় নেয়। স্থানীয়দের ধারণা হনুমানটি রাজশাহী এলাকা থেকে দলছুট হয়ে এসেছে। হরিপুর ইউপি চেয়ারম্যান মকবুল হোসেন জানান, হনুমানটি দেখতে উৎসুক শত,শত জনতা ভিড় জমাচ্ছেন। হনুমানটির লেজ অনেক লম্বা, মুখ ও পা কালো। তিন দিন অবিরাম চেষ্টার পর শেষ পর্যন্ত স্থানীয় বন বিভাগের ও স্থানীয় লোকজনের কাছে এই বিরল প্রজাতির হনুমানটি খুব কাছে এসে দেখা দিল। তবে তাকে এখন পর্যন্ত ধরা যায়নি।

পাবনা চাটমোহরে রেলস্টেশনে টিকিট কালোবাজারে জড়িত রেলের কর্মকর্তারা
মোবারক বিশ্বাস ঃ পশ্চিম রেলওয়ের রাজশাহী-ঢাকা, খুলনা-ঢাকা, দিনাজপুর-ঢাকা যাতায়াতকারী আন্তঃনগর ট্রেনগুলো টিকেট কালোবাজারী চক্রের দখলে চলে গেছে। টিকিট কালোবাজারীর সাথে জড়িত রেলওয়ের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। পাবনার চাটমোহর রেলস্টেশনে টিকেট চক্রের দৌরাত্ম সবচেয়ে বেশি। প্রতিদিন চাটমোহর স্টেশন হয়ে আন্তঃনগর ট্রেন পদ্মা, ধূমকেতু, সিল্কসিটি, সুন্দরবন, দ্রুতযান, চিত্রা যাতায়াত করে। এসকল ট্রেনের টিকিট কাউন্টার থেকে বলা হয় টিকিট দুদিন আগেই শেষ হয়ে গেছে। কেউ যদি টিকিটের জন্য পীড়াপীড়ি করেন, তাহলে তাকে টিকেট দেয়া হলেও কোন সিট নম্বর দেয়া হয় না। চোরাকারবারী চক্রের সদস্যরা ১৩৫ টাকার টিকেট ২৫০ টাকা করে বিক্রি করছে। রেলস্টেশনে প্ল¬াটফরমে প্রকাশ্যে টিকেট কালোবাজারী করা হয়। একাধিক সূত্রে জানান, রেলস্টেশন এলাকার কতিপয় ব্যক্তি প্রতিদিন সকালে প্রত্যকটি ট্রেনের টিকিট স্টেশন মাষ্টারের কাছ থেকে কিনে নেয়। ট্রেনযাত্রীরা টিকেট কিনতে গেলে তাদেরকে দেয়া হয় না। ট্রেন মাষ্টার ফেরদৌস হাসান নিজেই কালোবাজারীদের হাতে টিকেট তুলে দেন বলে অভিযোগ। টিকেট কালোবাজারীর প্রতিবাদে এবং স্টেশন মাষ্টারের অপসারনের দাবিতে স্থানীয় আওয়ামীলীগ এবং এলাকাবাসী বিক্ষোভ সমাবেশও করেছে। কিন্তু সংশ্লি¬ষ্ট বিভাগের উর্ধতন কর্মকর্তারা এব্যাপারে ন্যুনতম কোন প্রকার পদক্ষেপ গ্রহন করেননি বলে জানা গেছে। কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারী এই কালোবাজারীর সাথে জড়িত বলে অভিযোগ। এব্যাপারে স্টেশন মাষ্টার মোঃ ফেরদৌস হাসানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, চাটমোহরে ট্রেনের টিকিট কালোবাজারী হচ্ছে কিনা জানিনা। আমাদের কাউন্টারে প্রতিদিনই টিকেট বিক্রি হচ্ছে। আমাদের জন্য যে কটা সিট বরাদ্ধ তা বিক্রি হবার পর সিট নম্বর বিহীন টিকেট বিক্রি হয়।

পাবনা চাটমোহরে অসামাজিক কাজে জড়িত ৩ জন আটক
মোবারক বিশ্বাস ঃ পাবনার চাটমোহর উপজেলার হান্ডিয়াল গ্রামে অসসামাজিক কার্যকলাপের সাথে জড়িত থাকার অভিযেগে এলাকাবাসী ৩ জনকে আটক করেছে। আটককৃতরা হলো, দাস বেলাই গ্রামের মজিবর (৩৫), ঘোষবেলাই গ্রামের আমজাদ হোসেন (৩৪) ও দারেশ্বর গ্রামের মোফাজাদ হোসেন (৩৫)। আটকৃতরা এদিন হান্ডিয়াল রাতে পশ্চিম বাজার ওয়াপদা বাঁধের উপরের বাসিন্দা করিব হোসেনের স্ত্রী নুরজাহান (২৮) ঘরে ঢুকে অসামাজিক কাজে লিপ্ত হয়। এলাকাবাসী টের পেয়ে তাদেরকে আটক করে। পরে উত্তম মাধ্যম দিয়ে হান্ডিয়াল পুলিশ ফাঁড়িতে হস্তান্তর করে। রাতভর দেন দরবার শেষে ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে হান্ডিয়াল পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই আশরাফ তাদেরকে ছেড়ে দেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এব্যাপারে এসআই

পাবনায় রবিশস্যের বাম্পার ফলন
মোবারক বিশ্বাস ঃ পাবনার ৯টি উপজেলায় চলতি মৌসুমে রবি শস্যের বাম্পার ফলন হয়েছে। ভালো ফলন আর বাজারে ভালো দাম পাওয়ায় হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানা গেছে, এ বছর জেলার ৯টি উপজেলায় গম আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৪ হাজার ৩৭১ হেক্টর জমিতে। আবাদ হয়েছে ৩২ হাজার ৭৬০ হেক্টরে। এতে উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৮৯ হাজার ১৮৩ মেট্রিক টন। সরিষা আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩২ হাজার ২৫১ হেক্টর জমি। আবাদ হয়েছে ২৯ হাজার ৯৫৫ হেক্টর জমিতে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩৮ হাজার ৭০০ মেট্রিক টন। ১৬ হাজার ২২৫ হেক্টর জমিতে খেশারি আবাদের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আবাদ হয়েছে ১৫ হাজার ২৬৫ হেক্টর জমিতে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৬ হাজার ২২৫ মেট্রিক টন। ধনে আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১ হাজার ৪৭৬ হেক্টর জমি। আবাদ হয় ৮৮৭ হেক্টর জমিতে। আর উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১ হাজার ৬৯৭ মেট্রিক টন। ১৪ হাজার ২৩৯ হেক্টর জমিতে মসুর আবাদের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে ১৩ হাজার ৭৮৪ হেক্টর জমিতে আবাদ হয়। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ১৯ হাজার ১৫৮ মেট্রিক টন। ভুট্টা আবাদে ৫৩৪ হেক্টর জমি লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আবাদ হয় ৫৩৭ হেক্টরে। আর উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ হাজার ৭৯১ মেট্রিক টন। পেঁয়াজ আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয় ৩৬ হাজার ৫৪৫ হেক্টর জমিতে। এর বিপরীতে আবাদ হয় ৩৬ হাজার ৫৪৪ হেক্টর জমিতে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৩ লাখ ২৮ হাজার ৯০৫ মেট্রিক টন। ৭ হাজার ২৪২ হেক্টর জমিতে রসুন আবাদের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আবাদ হয় ৬ হাজার ১৬১ হেক্টরে। উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৪৬ হাজার ৩৪৯ মেট্রিক টন।

ঘাতক স্বামী গ্রেফতার ভাঙ্গুড়ায় নববধূকে শ্বাসরোধ করে হত্যার অভিযোগ
মোবারক বিশ্বাস ঃ অমানুষিক নির্যাতনের পর পাবনার ভাঙ্গুড়ায় ইতি আরা খাতুন(১৯) নামের এক নববধূকে স্বামী, শাশুড়ি মিলে নির্মমভাবে পিটিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে। ইতি আরা খাতুন উপজেলার রুপসী গ্রামের মফিজ উদ্দিনের কন্যা। থানা পুলিশ ও এলাকাবাসি জানায়, ৫/৬ মাস আগে উপজেলার বড়বিশাকোল গ্রামের জালাল উদ্দিনের পুত্র ফরিদ প্রামানিকের সাথে ইতি আরার বিয়ে হয়। বিয়ের পর হতেই যৌতুকের দাবিতে স্বামীর বাড়ির লোকজন তার উপর নানাভাবে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করত। ঘটনার দিন মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ওই গৃহবধূকে স্বামী ,শাশুড়ি মিলে মারপিটের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করে শয়ন কক্ষে ডাবের সাথে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুঁলিয়ে রাখে। পরিকল্পিত এ হত্যাকান্ডটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচার করে। খবর পেয়ে ভাঙ্গুড়া থানার এসআই আব্দুল মান্নান লাশ উদ্ধার করে বুধবার পাবনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। পুলিশ জানায়,নিহত গৃহবধূর বাম স্তনসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে আগুনের ছ্যাকার দাগ থাকায় ধারণা করা হচ্ছে তাকে নির্যাতনের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ঘাতক স্বামী ফরিদ প্রামানিক(২৪)কে গ্রেফতার করে পাবনা জেলহাজতে প্রেরণ করেছে। ভাঙ্গুড়া থানায় ৩০২/৩৪/১১৪ ধারায় মামলা হয়েছে। মামলা নং-০৬। এএসপি সার্কেল(ঈশ্বরদী) রাশেদুল ইসলাম ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

About

আরও পড়ুন...

শার্শায় মাঠ জুড়ে বিভিন্ন জাতের সরিষা চাষ

মোঃ রাসেল ইসলাম,বেনাপোল প্রতিনিধি: যশোরের শার্শা উপজেলায় এ বছর বিভিন্ন জাতের সরিষা চাষ শুরু হয়েছে। …

error: Content is protected !!