Home / শীর্ষ সংবাদ / বিদ্যুৎ উৎপাদন ৬ হাজার মেগাওয়াট ছাড়িয়েছে

বিদ্যুৎ উৎপাদন ৬ হাজার মেগাওয়াট ছাড়িয়েছে

দৈনিক বিদ্যুতের গড় উৎপাদন দেশে এই প্রথম ৬ হাজার মেগাওয়াট ছাড়িয়েছে। ছয় দিন আগের রেকর্ড ভেঙে বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে ৬ হাজার ৬৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যোগ হয়েছে। বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের জনসংযোগ বিভাগের পরিচালক সাইফুল হাসান চৌধুরী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ রাত ৮টার দিকে ৬ হাজার ৬৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়েছে, যা এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ।” এর আগে দিনে বিদ্যুতের সর্বোচ্চ উৎপাদন হয়েছিল গত ১৬ মার্চ ৫ হাজার ৫৬৯ মেগাওয়াট। আগের রেকর্ডটি হয়েছিল গত বছরের ২৯ অগাস্ট, সে দিন সর্বোচ্চ উৎপাদন হয়েছিল ৫ হাজার ২৪৪ মেগাওয়াট। বর্তমানে দেশে বিদ্যুতের চাহিদা প্রায় সাড়ে ৭ হাজার মেগাওয়াট। চাহিদার সঙ্গে উৎপাদনের ফারাক থাকায় লোডশেডিং দিয়ে পরিস্থিতি সামাল দিতে হচ্ছে বিদ্যুৎ বিভাগকে। গত বছরও কয়েক দফায় বিদ্যুৎ উৎপাদনে রেকর্ড হলেও গ্রীষ্মকালে ব্যাপক লোড-শেডিং হয়েছিল। বুধবার বিদ্যুৎ সচিব আবুল কালাম আজাদ সাংবাদিকদের জানান, বোরো মৌসুমে সেচ কাজে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য বেলা ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত আগামী ২ মাস সিএনজি স্টেশন বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এছাড়া সেচ মৌসুমে গ্রামাঞ্চলে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহের জন্য সন্ধ্যা ৬টা থেকে সকাল ৬টা পর্যন্ত শিল্প কারখানা বন্ধ রাখার আহ্বানও জানায় মন্ত্রণালয়। ২০০৯ সালে ক্ষমতায় আসার পর বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার বিদ্যুৎ খাতকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়ার কথা বলে আসছে। সরকার ২০১৬ সালের মধ্যে উৎপাদন প্রায় ১৫ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত করার পরিকল্পনা নেয়। এ পরিকল্পনা অনুযায়ী গত তিন বছরে মোট ৫ হাজার ৫৩৩ মেগাওয়াট ক্ষমতার ৫২টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের চুক্তি হয়েছে। এর মধ্যে ২৫টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে ১ হাজার ৯৯৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যোগ হয়েছে। বাকি ৩ হাজার ৫৩৯ মেগাওয়াট ক্ষমতার ২৭টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণাধীন। এছাড়া বিগত সরকারের আমলে চুক্তিকৃত ১৯টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে বর্তমান সরকারের সময়ে ৯৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ গ্রিডে যোগ হয়েছে।

About

আরও পড়ুন...

অভাবের ঈদ স্বভাবের ঈদ

সব মিলিয়ে দেশের মানুষদের মাঝে এবারের ঈদ হয়ে উঠেছে অর্থনৈতিক দুর্দশা আর হতাশায় মিলেমিশে এক …

error: বাংলার বার্তা থেকে আপনাকে এই পৃষ্ঠাটির অনুলিপি করার অনুমতি দেওয়া হয়নি, ধন্যবাদ