Home / দেশ / রাজপথের আন্দোলনে সক্রিয় সোলায়মান সেরনিয়বাদ

রাজপথের আন্দোলনে সক্রিয় সোলায়মান সেরনিয়বাদ


মতিউর রহমান লিটু : আমেরিকার বিলাসী জীবন ছেড়ে দেশমাতৃকার টানে রাজপথের সক্রিয় আন্দোলনে যোগ দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বিএনপি নেতা সোলায়মান সেরনিয়াবাদ। নিউজার্সি অংগরাজ্যের এগহারবার সিটি ডেমোক্রাটিক পার্টি প্রেসিডেন্ট ও নিউজার্সি বিএনপি সভাপতি সোলয়মান সেরনিয়াবাদ নিউজার্সি ষ্টেট সিনেটের প্রোটোকল অফিসার হিসাবে কর্মরত ছিলেন, এছাড়া তিনি একজন সফল ট্রান্সপোর্ট ও রিয়াল এস্টেট ব্যবসায়ী। সফল ব্যবসায়ী ও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব যুক্তরাষ্ট্রে বিলাসী জীবনযাপন করতেন কিন্তু সম্প্রতি তিনি দেশমাতৃকার মায়ায় দেশীয় রাজনীতিতে সক্রিয় অবদান রখার জন্য বাংলাদেশে ফিরে গেছেন। বরিশালের বাকেরগঞ্জ নির্বাচনী এলাকার বিএনপি রাজনীতিতে ইতিমধ্যে নতুন ধারার সৃষ্টিকরতে সক্ষম হয়েছেন তিনি। বিভক্তিভুলে অধিকাংশ নেতাকর্মীই এখন সোলায়মান সেরনিয়াবাদের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ। এছাড়া বাকেরগঞ্জের উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক বিএনপি এমপি আবুল হোসেন বামপন্থি জাসদের রাজনীতির সাথে জড়িত ছিলেন দীর্ঘদিন এ কারণে এলাকায় মানুষের মাঝে রয়েছে তাঁর ধর্মবিদ্বেসী নেতিবাচক পরিচিতি। জাসদের রাজনীতি ছেড়ে ১৯৯১ সালে তিনি প্রথম বিএনপি মনোনয়নে এমপি নির্বাচিত হন। মাদ্রাসা মসজিদ উন্নয়নে তাঁর তেমন কোন অবদান নেই বলে অভিযোগ রয়েছে দীর্ঘদিনের। ১/১১ পরবর্তী রাজনীতিতে তিনি অন্যতম সংস্কারাদী নেতা হিসাবেই এলাকায় পরিচিত। বিকল্প কোন নেতা না থাকায় স্থানীয় বিএনপি নেতাকর্মীরা রীতিমত জিম্মি ছিলেন সাবেক এই এমপির কাছে। কমিটি থেকে বহিস্কার হওয়ার ভয়ে কোন অপকর্মের বিরোধীতা করতে পারেননি নেতাকর্মীরা। স্থানীয়ভাবে গনবিচ্ছিন্ন হলেও কেন্দ্রের গুটিকয়েক বামপন্থি রাজনীতিবীদের ছত্রছায়ায় এখনও প্রভাব দেখিয়ে বেড়ান সাবেক এমপি আবুল হোসেন খান। সম্প্রতি বিএনপি হাইকমান্ড সংস্কারবাদী নেতাদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থানের আভাষ দেয়ায় স্থানীয় নেতাকর্মীরা ব্যাপক উতফুল্ল হয়ে উঠেছেন। সাবেক এই এমপির বিরুদ্ধে সরাসরি অবস্থান নিয়ে সোলায়মান সেরনিয়াবাদের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হয়েছেন বলে জানা যায়। সরকার বিরোধী আন্দোলনে স্থানীয় বা ঢাকার কোন রাজপথে এমপি আবুল হোসেনের সামান্যতম অবদান আছে বলে মনে করেন না স্থানীয় নেতাকর্মীরা। এছাড়া দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত আবুল হোসেন খান রাজনৈতিকভাবে কখনও সক্রিয় হতে পারবেন এমনটা আশাকরাও ভুলবলে মনে করছেন অধিকাংশ নেতাকর্মীরা। অপরদিকে ২০১১ সালে নিউজার্সি ষ্টেট সিনেট কতৃক রাষ্ট্রীয় সম্মানে অভিহিত করা হয় দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে এই অনুষ্ঠান আয়োজনের পিছনে সোলায়মান সেরনিয়াবাদের ভুমিকা অপরিসীম। তাই স্বাভাবিকভাবেই দলের উচ্চপর্যায়ে তাঁর প্রতি রয়েছে নমনীয় মনোভাব। সবকিছু মিলিয়ে বাকেরগঞ্জের বিএনপি রাজনীতিতে চলছে দুইনেতার সোলায়মান বনাম আবুল হোসেন ফোবিয়া

আরও পড়ুন...

বেনাপোলে বন্দর শ্রমিকের বাড়ি থেকে ২০ টি ককটেল জব্দ করেছে বিজিবি

মোঃ রাসেল ইসলাম,বেনাপোল প্রতিনিধি: যশোরের বেনাপোল স্থলবন্দরে কর্মরত শ্রমিকের বাড়ি থেকে ২০ টি তাজা ককটেল …