Home / শীর্ষ সংবাদ / স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির ধ্বংসাত্মক তাণ্ডবের প্রতিবাদে বিক্ষোভ

স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির ধ্বংসাত্মক তাণ্ডবের প্রতিবাদে বিক্ষোভ

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনকালে দেশব্যাপী স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তির ধ্বংসাত্মক তাণ্ডবের প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেছে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগ। শনিবার (২৭ মার্চ) বিকালে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস ও আশপাশের বিভিন্ন সড়কে এ বিক্ষোভ মিছিল করে তারা।

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. রেজাউল ইসলাম মাজেদ নেতৃত্বে উপস্থিত ছিলেন, বঙ্গবন্ধু হলের সাধারণ সম্পাদক হানিফ ওয়াহিদ, শাখা ছাত্রলীগের উপ-আপ্যয়ণ বিষয়ক সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু হল শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক খাইরুল বাসার সাকিব,কাজী নজরুল ইসলাম হলের সভাপতি ইমরান হোসাইন, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এ এস এম সায়েম, কাজী নজরুল ইসলাম হলের সহ-সভাপতি নাজমুল হাসান পলাশ,শাখা ছাত্রলীগের উপ-মানব সম্পদ বিষয়ক সম্পাদক ও শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হল শাখা ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এনায়েত উল্লাহ, শাখা ছাত্রলীগ নেতা জাহিদুল ইসলাম ও সালমান চৌধুরী সহ শাখা ছাত্রলীগের অন্যান্য নেতা-কর্মীরা।

এ ব্যাপারে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. রেজাউল ইসলাম মাজেদ বলেন, বিভিন্ন জায়গায় শিবির, হেফাজত কর্মীরা ব্রাহ্মণবাড়িয়া বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ভেঙেছে এবং আরো কিছু কিছু জায়গায় হামলা করেছে। এ হামলার প্রতিবাদে আজ আমরা বিক্ষোভ মিছিল করেছি। আমরা এ হামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। যারা হামলায় অংশ নিয়েছে তাদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানাই।

About Jahir Raihan

আরও পড়ুন...

কুয়েতে তরুন সফল উদ্যোক্তা

কুয়েতে সাধারণ এক গাড়িচালক হিসেবে প্রবাস জীবন শুরু। সেই থেকে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে ধীরে ধীরে সফল ব্যবসায়ীতে পরিণত হয়েছেন । বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশ থেকে নিত্যব্যবহার্য পণ্য আমদানি করে এরই মধ্যে দেশটিতে বিশাল বাজার তৈরি করে ফেলেছেন তরুণ এই প্রবাসী।শরীফ মোহাম্মদ মিজানুর রহমান।।  মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম (৩৮)। বন্ধুরা তাঁকে সম্মান করে মুফতি নামে ডাকেন। গ্রামের বাড়ি পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার বেকুটিয়া গ্রামে। শহিদুল ইসলামের বাবা মুহাম্মদ সুলতান আলী পেশায় একজন কৃষক। বাংলাদেশে থাকার সময় শহিদুল ইসলাম রাজধানীর মিরপুরের মাদ্রাসা দারুল উলুম থেকে দাওরায়ে হাদিস বিষয়ে পড়াশোনা করেন এবং সর্বোচ্চ ডিগ্রি মুফতি উপাধি অর্জন করেন। এরপর কিছুদিন দেশে একটি মাদ্রাসায় শিক্ষকতাও করেন তিনি। শহিদুল ইসলাম জানান, ২০০৫ সালে কুয়েতে এসে কুয়েতি  নাগরিকের ওখানে গাড়িচালক হিসেবে তিনি দুই বছর কাজ করেন। সে কাজের সূত্রে কুয়েতের বিভিন্ন স্থান ও বাজার সম্পর্কে পরিচিত হন তিনি। পরে গাড়ি চালানো বাদ দিয়ে তিনি কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে বিক্রয়কর্মীর চাকরি  করেন।  পাশাপাশি ছোট খাট …

error: Content is protected !!