Home / বিনোদন / হাসপাতালে রোগীর বিছানায় সাপ, আতঙ্ক

হাসপাতালে রোগীর বিছানায় সাপ, আতঙ্ক

৫ বছরের ছেলেকে নিয়ে শুয়েছিলেন মা। ঘুমের মধ্যে হঠাৎ মনে হল, ঠাণ্ডা কিছু একটা গা বেয়ে চলে যাচ্ছে। বিছানায় লাফ দিয়ে উঠে বসতেই মেঝেতে যা ছিটকে পড়ল, তা দেখে শিউরে উঠলেন বছর চৌত্রিশের ওই মহিলা। দেখলেন, মেঝেতে কিলবিল করে চলে যাচ্ছে ইঞ্চি দশেকের একটি কুচকুচে কালো সাপ!

রবিবার ভোরে এমনটাই ঘটেছে বেলেঘাটা সংলগ্ন ইএম বাইপাসের এক বেসরকারি হাসপাতালে। সুতমা মজুমদার নামে ওই মহিলা জানান, পেটের অসুখের চিকিৎসার জন্য তাঁর ছেলেকে ১২ মে ওই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এক সপ্তাহ ধরে তাঁর ছেলের চিকিৎসা চলছিল। ছেলে ছোট বলে তিনিও তার সঙ্গে শিশু বিভাগে ছিলেন। সুতমার কথায়, “শনিবার রাতে একই কম্বলে আমি ছেলেকে নিয়ে শুয়েছিলাম। ঘুমের মধ্যে আচমকা অস্বস্তি! মনে হল, কী যেন আমার ঘাড় বেয়ে হাতের উপর দিয়ে চলে যাচ্ছে। চোখ খুলে হাত ঝাড়তেই একটা কালো সাপ ছিটকে পড়ল মেঝেতে।”

তখনই চিৎকার করে হাসপাতালের কর্মীদের ডাকতে থাকেন সুতমা। ফোন করে স্বামীকেও পুরো বিষয়টি জানান তিনি। খবর পাওয়ার আধ ঘণ্টার মধ্যে হাসপাতালে এসে হাজির হন সুতমার স্বামী। কিন্তু, ততক্ষণে হাসপাতালের কর্মীরা সাপটিকে মেরে বাইরে ফেলে দেওয়ায় সেটি আর দেখতে পাননি বলে জানিয়েছেন তিনি। সুতমার দাবি, এই ঘটনার পরে ভয় পেয়ে সংজ্ঞা হারান তিনি। কিছুক্ষণ নার্সের পর্যবেক্ষণে থাকার পরে সুস্থ বোধ করেন। তাঁর অভিযোগ, এত রক্ষণাবেক্ষণ সত্ত্বেও বিছানায় সাপ এল কী করে? তাঁর কথায়, “সাপটা যদি ছেলেকে কামড়ে দিত, তা হলে কী হত?” সুতমাদেবী জানান, এ দিন সকালেই তাঁর ছেলেকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়ার কথা ছিল। সেই মতো তিনি ছেলেকে ছাড়িয়েও নিয়ে যান। তবে, তার আগে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগও জানিয়ে যান।

বিভিন্ন সময়ে শহরের একাধিক বেসরকারি হাসপাতালের বিরুদ্ধে নানা গাফিলতির অভিযোগ উঠেছে। তবে, রোগীর বিছানায় সাপের আনাগোনার ঘটনা বিরল। হাসপাতালের মেডিক্যাল সুপারিন্টেন্ডেন্ট জয় বসু বলেন, “ছোট, বিষহীন সাপ ছিল। সঙ্গে সঙ্গে মেরেও ফেলা হয়েছে। কারও ক্ষতি হয়নি। কোন পথে সাপটি এল, তা খতিয়ে দেখতে বিশেষজ্ঞদের ডেকে পাঠানো হয়েছে।”

About

আরও পড়ুন...

অবিস্মরণীয় করতে কুয়েত প্রবাসীদের প্রচেষ্টা

বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা,  হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এই মহানায়কের জন্মশত …

error: বাংলার বার্তা থেকে আপনাকে এই পৃষ্ঠাটির অনুলিপি করার অনুমতি দেওয়া হয়নি, ধন্যবাদ