আপডেট :»-
  বাংলা-

৩০০ এতিম ও ভিক্ষুকদের গোশ-ভাত খাওয়ালেন উদ্ভাবক মিজান

এতিম ও ভিক্ষুকদের গোশ-ভাত খাওয়ালেন উদ্ভাবক মিজান

এতিম ও ভিক্ষুকদের গোশ-ভাত খাওয়ালেন উদ্ভাবক মিজান

মোঃ রাসেল ইসলাম, বেনাপোল প্রতিনিধি: গত ৪ সেপ্টেম্বর,/২০২০ ইং তারিখে পথ শিশু ও পাগলদের মাঝে রান্না করা খাবার পরিবেশনের উদ্দ্যেশে দেশ সেরা উদ্ভাবক মিজানুর রহমান কর্ত্তৃক পরিচালিত মানব সেবা হেল্প ফাউন্ডেশন নামের প্রতিষ্ঠান শার্শা উপজেলার নাভারনে একটি ফ্রি খাবার বাড়ী উদ্ভোধন করা হয়।

শার্শার কৃতি সন্তান ও দেশ সেরা উদ্ভাবক গরীবের বন্ধু হিসেবে খ্যাত মোঃ মিজানুর রহমান এর এমন মহৎ উদ্দ্যোগকে এলাকার মানুষ সাধুবাদ জানান।অত্র উপজেলার নাভারন গালর্স স্কুল গেইট সংলগ্ন অস্থায়ী ভাবে বাদল নার্সারীতে তিনি এই সরাইখানা খোলেন। অত্র উপজেলার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার জুয়েল ইমরান ফ্রি খাবার বাড়ী নামের ঐ সরাইখানা টি উদ্ভোধন করেন। অত্র এলাকার সমাজের সর্বস্তরের মানুষ উদ্ভোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে ফ্রি খাবার বাড়ীর প্রতিস্ঠাতা উদ্ভাবক মিজানুর রহমানকে ধন্যবাদ জানান।

IMG_20200918_175757উদ্ভাবনের পাশা পাশী মানব সেবার এই মহতি উদ্দ্যোগকে সাদারন মানুষ বিনয়ের চোখে দেখতে শুরু করেছে।ইতো মধ্যে অনেকেই তার এই মহত কাজের জন্য আর্থিক ভাবে সহায়তার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এমন এক বিদেশী বন্ধুর কাছ থেকে পাওয়া একটি বড় ধরনের গরু’র মাংশ দিয়ে সাদা ভাত ও মুগ্ ডাউলের তরকারী সহ সুবিধা বঞ্চিত ও ৩০০ এতিম শিশুদের মাঝে খাবার পরিবেশন করা হয়। সেই সাথে নির্ধারিত ফ্রি খাবার বাড়ীতে জুম্মাবাদ এতিম শিশুদের নিয়ে আয়োজন করা হয়। দোয়া অনুষ্ঠানে এলাকার সর্ব স্তরের মানুষ অংশ নেন।

উদ্ভাবক মিজানুর রহমান সাংবাদিকদের জানিয়েছেন ২০১৮ ইং সাল থেকে তিনি শার্শা উপজেলা সহ পার্শ্ববর্তী উপজেলাতেও গরীব অসহয় পতশিশু মানসিক বিকার গ্রস্থ (পাগল) রাতার বেওয়ারিশ কুকুর এবং পশুপক্ষিদের রান্না করা খাবার পরিবেশন করে আসচেন। নির্দিস্ট কোন সরাই খানা না থাকায় বা নিজের কোন জায়গা না থাকায় এসকল খাবার পরিবেশন করতে বেশ কষ্ট হচ্ছে বলে নিয়েছেন। স্থায়ী একটি জায়গার সংস্থান হলে ঐসকল গরীব অসহায়দের তৃপ্তি সহকারে খাওয়াতে পারবেন বলে তিনি প্রকাশ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*
*

error: বাংলার বার্তা থেকে আপনাকে এই পৃষ্ঠাটির অনুলিপি করার অনুমতি দেওয়া হয়নি, ধন্যবাদ