Home / দেশ / ৭ মার্চের নিউজ করায় আরটিভি থেকে চাকুরী যায় সাংবাদিক দুলালের

৭ মার্চের নিউজ করায় আরটিভি থেকে চাকুরী যায় সাংবাদিক দুলালের

dulal২০০৮ সালের ৭ মার্চে জরুরী আইনের সময় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে লিড নিউজ করায় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল আরটিভি থেকে চাকরি চলে যায় তৎকালীন ঐ চ্যানেলের প্রধান বার্তা সম্পাদক সিনিয়র সাংবাদিক  শাহনেওয়াজ দুলালের ।৭ মার্চের ভাষণ নিয়ে লিড নিউজ করার দায়ে ঐ সময়ে ঐ চ্যানেলের যারা বকাঝকা করেছিলেন তাঁরা আজ বর্তমান সরকারের খুবই সুবিধাজনক  অবস্থানে আর সাংবাদিক দুলাল এখন চাকরি খুজছে। দুলালের সেই দিনের স্মৃতিই তুলে ধরেছেন তাঁর ফেসবুক পাতায়। নিচে তা হুবহু তুলে ধরা  হলো।

৭ই মার্চের এক টুকরো স্মৃতি
ভেবেছিলাম বিষয়টি নিয়ে কিছু লিখব না। সহসা ইচ্ছে হলো লেখার। লিখলে জমাট বাধা দু:খ কিছুটা কমতে পারে, মন পাখিটার এমন আবদার থেকেই ঘটনাটা বন্ধুদের জানাতে চাই। অবশ্য অনেকে আগেই জেনেছেন। কেউ আমার কাছে , কাউকে জানিয়েছেন সহকর্মী কেউ। আরটিভিতে বিশেষ প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করি শুরু থেকে অর্থাৎ ২০০৪ সালের শেষ ভাগে। এর দু’ বছর পর ২০০৭ সালের অক্টোবরে সেখানে ওলট- পালট ঘটে যায়। যারা ওই প্রতিষ্ঠানে সে সময় কাজ করতেন তারা আসল ঘটনাটা জানেন। এই ওলট-পালটের সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে আমার কোন ধরণের সংশ্লিষ্টতা ছিল না। তবুও সেদিন দু:খজনক ঘটনা ঘটেছিল। আর এটাও সত্য যে, বার্তা ও অনুষ্ঠান প্রধানের বিদায়ের পর বাস্তব অবস্থার মুখোমুখি হয়ে কর্তৃপক্ষ বার্তা বিভাগের দায়িত্ব দেন ৪ জনকে (পরে আমাকে প্রধান বার্তা সম্পাদক করা হয়) । এর কিছুদিন পর পরিচালক বার্তা হিসেবে যোগ দেন নাদীম কাদির। ওই সময়ে কার কি ভূমিকা ছিল, কে কি করতে পারতাম, এসব নিয়ে পক্ষে- বিপক্ষে কমবেশি যে যার যুক্তি, বক্তব্য বা মত তুলে ধরতে পারেন। সে বিতর্কে যাচ্ছি না।

আমি বলতে চাইছি , ৭ই মার্চে জাতিরপিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ভাষনকে ঘিরে আমার জীবনের এক টুকরো স্মৃতি। ২০০৮ সালের ৬ মার্চের রাতের কথা। তখন দেশে জরুরি শাসন চলছিল। সকাল থেকে টানা কাজ করেছি। বার্তা সম্পাদক কেউই ছিলেন না বলে বাড়তি কাজ করতে হতো প্রতিদিন । ফলে রাত ১০টার পর শরীর আর বোঝা নিতে পারত না। ক্লান্ত হয়ে বাসায় ফেরার প্রস্তুতি নিচ্ছি, এমন সময় সহকর্মী মাহমুদ হাসান মনে করিয়ে দিলেন পরদিন ৭ই মার্চের কথা। রাত সোয়া ১২টার সংবাদে ঐতিহাসিক এই দিন সম্পর্কে প্যাকেজ হতেই পারে। নাফিজা দৌলাকে দায়িত্ব দেয়া হল স্ক্রিপ্ট লেখার। লেখা দেখলাম ঠিক। ফুটেজতো আর কেউ বদলাতে পারবে না। তাই তাকে বললাম ফুটেজ বসিয়ে নিন। এরই মধ্যেই বার্তা প্রধান নাদীম কাদিরের সঙ্গে কয়েক দফা চেষ্টা করেও কথা বলতে পারিনি। কারণ তার সেল ফোন বন্ধ ছিল। নিউজের গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়ে প্রধান শিরোনাম করার সিদ্ধান্ত দিয়ে বাসায় রওয়ানা করি অফিসের গাড়িতে । কারওয়ান বাজার থেকে রামপুরা টিভি ভবনের সামনে পৌছতেই বার্তা পরিচালক ফোনে অশ্লীল ভাষা প্রয়োগ করে বললেন বঙ্গবন্ধুর ভাষণ কেন লিড নিউজ করা হলো। আমাদের নিউজের কারণে উত্তরপাড়া থেকে ৩০০ টেলিফোন কল পেয়েছেন। আমাকে উনি দেখে ছাড়বেন ইত্যাদি। রাতের বেলা সবার কথা ধরতে নেই। উনারা অনেক পার্টিতে যান। কি অবস্থায় আছেন, মনকে শান্তনা দেয়ার চেষ্টা করে বাসায় গেলাম। পরদিন ওই প্যাকেজ আর অনএয়ার করা হয়নি। বিকেল বেলা আরটিভির নয়া মালিক বেঙ্গল গ্রুপের চেয়ারম্যান জনাব মোর্শেদ আলম নাদীম কাদিরকে সঙ্গে নিয়ে অফিসে এসে আমাকে আর মাহমুদ হাসানকে ডেকে পাঠালেন। বললেন তোমরা শেখ সাহেবের ২০ মিনিটের ভাষণ প্রচার করছো কেন। এর জবাবে বললাম, বঙ্গবন্ধুর ভাষণটাইতো ২০ মিনিটের নয়। প্যাকেজের ব্যপ্তী ২ মিনিটই হবে না। তবুও যদি আপনার এ নিয়ে কোন সন্দেহ থাকে তাহলে টেপ এনে পরীক্ষা করে দেখুন। মোর্শেদ সাহেব তখন নাদীম কাদিরের দিকে তাকিয়ে কি নাদীম ওরা কি বলে। এর কোন উত্তর দিলেন না নাদীম সাহেব। পরে আমাদের কাজ করতে যেতে বলা হলো। এর ঠিক এক মাস না যেতেই আকস্মিকভাবে বিদায় করা হয় আমাকে। পরে একে একে অনেকে বিদায় নিয়েছেন। সেই নাদীম কাদির এখন প্রেস মিনিস্টার লন্ডন এবং মোর্শেদ আলম সাহেব ক্ষমতাসীন দলের এমপি। আর আমি চাকুরী খুজে ফিরছি….

আরও পড়ুন...

নগরীতে জেএসইউএস ও সিডিডি আয়োজিত প্রতিবন্ধিতা ও একীভূত উন্নয়ন বিষয়ক কর্মশালা

প্রেস বিজ্ঞপ্তি : প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের নিয়ে কর্মরত জাতীয় সংগঠন সেন্টার ফর ডিজএ্যাবিলিটি ইন ডেভেলপমেন্ট (সিডিডি) ও সিবিএম এর সহযোগিতায় বেসরকারী মানব উন্নয়ন মূলক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন যুগান্তর সমাজ উন্নয়ন সংস্থা (জেএসইউএস)’র অংশগ্রহণে “প্রতিবন্ধিতা ও একীভূত উন্নয়ন বিষয়ক প্রশিক্ষণ”গত ১৯ নভেম্বর ২০২০ ইংরেজী নগরীর দেওয়ানবাজারস্থ সংস্থার প্রধান কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে জেএসইউএস নির্বাহী পর্ষদের সদস্য ও সংস্থার উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণে আয়োজিত কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন সংস্থার সহ-সভাপতি ফারজানা রহমান শিমু, সাধারণ সম্পাদক ও নির্বাহী পরিচালক ইয়াসমীন পারভীন, ব্যবস্থাপনা উপদেষ্টা ও পরিচালক কবি প্রাবন্ধিক সাঈদুল আরেফীন, সহ-সাধারণ সম্পাদক আলহাজ ছাবের আহমেদ, নির্বাহী সদস্য শাহানাজ বেগম, সিনিয়র এসিসটেন্ট ডিরেক্টর এম এ আসাদ, এসিসটেন্ট ডিরেক্টর শহীদুল ইসলাম, সংস্থার শাখা ব্যবস্থাপকসহ অপরাপর কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও সিডিডি-এর পক্ষ থেকে থিমেটিক এক্সপার্ট মো: জাহাঙ্গীর আলম, সিডিডি’র কোঅর্ডিনেটর ও প্রজেক্ট ম্যানেজার তানবিন আহমেদ, শাহ জালাল, জুনায়েদ রহমান, হীরা বণিক উপস্থিত ছিলেন। কর্মশালায় প্রতিবন্ধিতা বিষয়ক ধারণা, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অন্তর্ভূক্তি, সংস্থায় প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অন্তর্ভূক্তি বিষয়ে ধারণা ও সকল কর্মকাণ্ডে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিকে সম্পৃক্তকরণের পাশাপাশি এ সংক্রান্ত কর্মপদ্ধতি নির্ধারণসহ নানা বিষয়ে আলোচনা করা হয়। কর্মশালাটি পরিচালনা করেন মো: জাহাঙ্গীর আলম। কর্মশালা পরিচালনায় মো: জাহাঙ্গীর আলম বলেন, “বর্তমান সরকারের আন্তরিকতা ও নানা উদ্যোগ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। সরকারের এ সংক্রান্ত অনেক আইন ও নীতিমালা রয়েছে। কিন্তু  সে অনুযায়ি সচেতনতা না থাকায় এর সুফল প্রতিবন্ধী ব্যক্তিবর্গ পাচ্ছেন না। আমাদের সকলের সম্মিলত প্রচেষ্টায় প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতি সাধিত হতে পারে।” উদ্যোগ নিতে হবে আমাদের সকলকে বলে তিনি মন্তব্য করেন। এ প্রসঙ্গে সংস্থার পরিচালক কবি প্রাবন্ধিক সাঈদুল আরেফীন বলেন, “জেএসইউএস প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। সংস্থা অপরাপর কর্মসূচীতে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অংশগ্রহণ এবং তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে সর্বোচ্চ গুরুত্বারোপ করে।” ভবিষ্যতে সকল প্রকল্প গ্রহণ এবং বাস্তবায়নে প্রতিবন্ধিতা ইস্যুটি সর্বাগ্রে বিবেচনা করা হবে বলে তিনি মন্তব্য করেন। -প্রেস বিজ্ঞপ্তি বার্তা প্রেরক মো: আরিফুর রহমান প্রোগ্রাম ম্যানেজার (এসডিপি)