Home / কুয়েত / কুয়েতে মুজিব বর্ষ বিজয়দিবস কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ২০২০ এর উদ্বোধন

কুয়েতে মুজিব বর্ষ বিজয়দিবস কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ২০২০ এর উদ্বোধন

কুয়েতে মুজিব বর্ষ উপলক্ষে বাংলাদেশ ক্রিকেট এসোসিয়েশন কুয়েতের উদ্যোগে ও বাংলাদেশ দূতাবাসের পৃষ্ঠপোষকতায় ”মুজিব বর্ষ” বিজয়দিবস কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্ট ২০২০ আয়োজন করা হয়েছে।

কুয়েতে আব্বাসিয়া ক্রিকেট গ্রাউন্ডে (২৩শে অক্টোবর) শুক্রবার সকালে খেলার উদ্বোধন করেন কুয়েতে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আশিকুজ্জামান। বাংলাদেশ ক্রিকেট এসোসিয়েশন কুয়েত এর সভাপতি জাহাঙ্গীর খান পলাশের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, দ্বিতীয় সচিব ও দূতালয় প্রধান নিয়াজ মোর্শেদ, কাউন্সেলর জহিরুল ইসলাম খান, কুয়েতের প্রশিাসনিক কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার ইবরাহিম আল-ধাই, নাসের আল আজমি, হাতেম আল-রাশিদী, আব্দুল আজিজি রাশিদী। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, আয়োজক সংগঠনের উপদেষ্টা হুমায়ূন কবির আলী, আতাউল গনি মামুন, মোঃ আকবর হুসেন, ফরিদ উদ্দিন, শফিকুল ইসলাম বাবুল, মঈন উদ্দিন সরকার সুমন, আ হ জুবেদ, সিনিয়র সহ সভাপতি নাজিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মোয়াজ্জেম হুসেন, সহ অনেকে।

”মুজিব বর্ষ” বিজয়দিবস কাপ ক্রিকেট টুর্নামেন্টে প্রবাসী বাংলাদেশীদের
২০টি ক্রিকেট দল অংশগ্রহণ করেছে। টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা ১৮ই ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।

উদ্বোধনী বক্ত্যেবে রাষ্ট্রদূত টুর্নামেন্ট আয়োজকদের ভূয়সী প্রশংসা করেন, বিদেশের মাটিতে দেশের সুনাম রক্ষা ও দেশের উন্নয়নে সব ধরনের কর্মকান্ডে দূতাবাস সবসময় প্রবাসীদের সহযোগিতা করে যাবে। পাশাপাশি করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ফাইনাল খেলা ঝাকঝমক ভাবে উদযাপন করার আশা ব্যক্ত করেন।

About admin

আরও পড়ুন...

কুয়েতে তরুন সফল উদ্যোক্তা

কুয়েতে সাধারণ এক গাড়িচালক হিসেবে প্রবাস জীবন শুরু। সেই থেকে কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে ধীরে ধীরে সফল ব্যবসায়ীতে পরিণত হয়েছেন । বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশ থেকে নিত্যব্যবহার্য পণ্য আমদানি করে এরই মধ্যে দেশটিতে বিশাল বাজার তৈরি করে ফেলেছেন তরুণ এই প্রবাসী।শরীফ মোহাম্মদ মিজানুর রহমান।।  মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম (৩৮)। বন্ধুরা তাঁকে সম্মান করে মুফতি নামে ডাকেন। গ্রামের বাড়ি পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার বেকুটিয়া গ্রামে। শহিদুল ইসলামের বাবা মুহাম্মদ সুলতান আলী পেশায় একজন কৃষক। বাংলাদেশে থাকার সময় শহিদুল ইসলাম রাজধানীর মিরপুরের মাদ্রাসা দারুল উলুম থেকে দাওরায়ে হাদিস বিষয়ে পড়াশোনা করেন এবং সর্বোচ্চ ডিগ্রি মুফতি উপাধি অর্জন করেন। এরপর কিছুদিন দেশে একটি মাদ্রাসায় শিক্ষকতাও করেন তিনি। শহিদুল ইসলাম জানান, ২০০৫ সালে কুয়েতে এসে কুয়েতি  নাগরিকের ওখানে গাড়িচালক হিসেবে তিনি দুই বছর কাজ করেন। সে কাজের সূত্রে কুয়েতের বিভিন্ন স্থান ও বাজার সম্পর্কে পরিচিত হন তিনি। পরে গাড়ি চালানো বাদ দিয়ে তিনি কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে বিক্রয়কর্মীর চাকরি  করেন।  পাশাপাশি ছোট খাট …

error: Content is protected !!